যে বয়সে পড়ালখো করবে সইে বয়সইে কঠনি বাস্তবতার কাছে হরেে ভক্ষিা করছে ৮ বছররে শশিু মারয়িা

দৈনিক নতুন বিশ্ববার্তা অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশিত: ৯:৩১ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২২, ২০২০

বশিষে প্রতনিধিি ঃ শহরে প্রায় সময় ময়েটোকে দখো যায় মানুষরে নকিট থকেে হাত পতেে টাকা নতি।ে আসলে ময়েটো কনে যে এসব করছে সে নজিওে জাননো। আসলইে কি ঘটনাটি এরকম নাকি অন্য কছিু। জীবন সংগ্রামে কঠনি বাস্তবতা নজিরে চোখইে দখেছে ৮ বছর বয়সে এই ময়েটে।ি ময়েটেরি বাসা শহররে জুগপিাড়ায়। নাম তার মারয়িা। সে প্রতনিয়িত পাবনা শহররে সকল র্মাকটে, বাজার, স্কুল, কললেে ঘুরে বড়োয় এবং নজিরে কষ্টরে কারনইে সাধারন মানুষরে কাছ থকেে টাকা চাচ্ছে র্অথাৎ ভক্ষিা করছ।ে উত্তর একটাই পরবিাররে র্আথকি অবস্থা খুব খারাপ বাবা নইে। ময়েটেি যখন মানুষরে কাছে হাত পাতে তখন অনকেে তার চহোরা দখেে ৫ টাকা ১০ টাকা দচ্ছি।ে আবার অনকেে ময়েটেকিে দখেে গালগিালাজ করছে কখনও আবার রগেে গয়িে চর মরেে বসছ।ে কনে সে এভাবে সাধারন মানুষকে হয়রানি করছে সে প্রশ্নরে উত্তর ময়েটেরি জানা নইে। সাধারণ জনতা বলছে তার বাবা , মা কি নইে নাকি সে অসুস্থ নাকি তার অন্য কোন সমস্যা? কন্তিু ময়েটেি এ সকল মানুষরে বভিন্নি রকম কথা শুনওে কষ্ট না পয়েে অন্য জায়গায় চলে যাচ্ছে এই ভবেে যে অন্য আরকেটি মানুষ হয়তো তাকে কছিু টাকা দয়িে সাহায্য করব।ে অনকে সময় ময়েটেরি ছবি তুলে অনকেে ফসেবুকে বা সামাজকি যোগাযোগ মাধ্যমেে সাহায্য মূলক র্বাতা দচ্ছিে ময়েটেকিে সহযোগীতা করার প্রচষ্টোয়। কন্তিু মানুষরে এই সামান্য সাহায্যে মারয়িার জীবন কি চলবে ! কারন সে আজ র্পযন্ত স্কুলরে রুমে বসে পড়ালখোর সুযোগ টুকো পায়ন।ি যে বয়সে মারয়িার স্কুলে থাকার কথা অথচ সে বয়সে সে হাত পাতছে ৫-১০ টাকার আশায়। বষিয়টি নয়িে ময়েটেকিে প্রশ্ন করলে সে জানায় আমার বাপ নইে নশো করতে করতে মারা গছে।ে আর মা বাড়তিে বাড়তিে কাজ করতো কন্তিু করোনায় সে কাজ বন্ধ হয়ে গছে।ে বাড়ীতে অসুস্থ নানী ও ছোট ভাইকে মা খতেে দতিে পারছনো। তাই সে এ শশিু বয়সে এই কঠনি বাস্তবতার সমাজে নমেছেে জীবনযুদ্ধ।ে একবার ভাবুন তার কি আয় রোজগার করা মতো বয়স হয়ছে?ে হে সমাজে কছিু টাউট বাটপার শ্রণেরি মানুষ আছে যারা সুস্থ থকেওে ভন্ডামি করে টাকা আয় করছে মানুষরে সাথে প্রতারনার মাধ্যমে।ে কন্তিু মারয়িার মতো শশিুরা না বুঝে এ সকল কাজ করছ।ে তার বছেে নওেয়া পথটরি কারনে সে যে সমাজরে চোখে প্রতারক পরচিয় পাচ্ছে সটো কখন তার মাথায় আসছইেনা। এখন এ সকল শশিু যদি সমাজে এভাবে চলতে থাকে তাহলে হয়তো কোনদনি দখো যাবে মারয়িা কোন খারাপ কাজে সাথে না বুঝে যুক্ত হয়ে গছে।ে তাই মারয়িার মতো শশিুদরেকে বাঁচাতে সবাইকে এগয়িে আসতে হবে তা নাহলে সমাজ থকেে এ মারয়িারা হারয়িে যাবে কঠনি বাস্তবতার কাছে হরেে গয়ি।ে