যুগোপযোগী আইন না থাকায় বেসরকারি স্বাস্থ্য খাতে অনিয়ম দুর্নীতি বেড়েছে লাগামহীনভাবে ৩৮ বছরের পুরনো অধ্যাদেশে চলছে বেসরকারি স্বাস্থ্যসেবা

দৈনিক নতুন বিশ্ববার্তা অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশিত: ৮:২৫ পূর্বাহ্ণ, আগস্ট ৪, ২০২০

দেশে স্বাস্থ্যসেবা গ্রহণকারী জনসংখ্যার প্রায় ৭০ শতাংশ বেসরকারি প্রতিষ্ঠান থেকে সেবা নেন। কিন্তু যুগোপযোগী আইন বা নীতিমালা না থাকায় বেসরকারি স্বাস্থ্য খাতে অনিয়ম-দুর্নীতিও বেড়েছে লাগামহীনভাবে। প্রাপ্য সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন নাগরিকরা। করোনাকালে এ খাতের বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি আরো প্রকাশ্যে এসেছে। এ অবস্থায় বেসরকারি স্বাস্থ্যসেবা খাতে শৃঙ্খলা ফেরাতে অধ্যাদেশের পরিবর্তে যুগোপযোগী আইন প্রণয়নের তাগিদ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।

করোনা মহামারীর সময় দেশের স্বাস্থ্যসেবা খাতের দুরবস্থার চিত্র স্পষ্ট হয়ে উঠেছে। পদে পদে অনিয়ম, দুর্নীতি, লুটপাট, স্বজনপ্রীতির ছবি একে একে প্রকাশ্যে আসছে। চিকিৎসাসেবার নামে স্বাস্থ্য খাতে চরম অব্যবস্থাপনার বিষয় মানুষের মুখে মুখে। দুর্যোগের সময় পুরো স্বাস্থ্য খাতের মুখোশ খুলে পড়েছে। করোনা টেস্টের নামে তোলপাড় চলছে। কোভিড-১৯ অজুহাতে অন্য রোগে আক্রান্তদের চিকিৎসা দেয়া হয়নি। দ্বারে দ্বারে ঘুরেও মানুষ হাসপাতালে ভর্তি হতে পারেননি। সর্বত্রই জিম্মি রোগী ও তাদের স্বজন। ছোট-বড় সব ধরনের কেনাকাটা, টেন্ডার জমা, পণ্য সরবরাহ না করেই টাকা তুলে নেয়া সবকিছুর সঙ্গে সেই পুরনো চক্রের জড়িত থাকার খবর আসছে। করোনাকালে কেনাকাটার নামে লুটপাট ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। নিয়োগ পদায়নেও থেমে নেই দুর্নীতি।

লাইসেন্স ছাড়া বেসরকারি হাসপাতাল, ক্লিনিক, ডায়াগনস্টিক সেন্টার পরিচালিত হচ্ছে। দেখার কেউ নেই। এসবের সঙ্গে জড়িতদের কারও বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে না। ফলে পার পেয়ে যাচ্ছে অপরাধীরা। তারাই আবার ফিরে ফিরে আসছে। বিশেষজ্ঞদের মতে, স্বাস্থ্য খাতের সর্বস্তরে পচন ধরেছে। তারা বলছেন, করোনা সামনে রেখেই পুরো স্বাস্থ্য খাতে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে হবে।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের সূত্রে জানা যায়, গত ৩৮ বছর আগের অধ্যাদেশেই চলছে বেসরকারি স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠানগুলো। ১৯৮২ সালে প্রণীত ‘বাংলাদেশে দ্য মেডিকেল প্র্যাকটিস অ্যান্ড প্রাইভেট ক্লিনিকস অ্যান্ড ল্যাবরেটরিজ রেগুলেশন অর্ডিন্যান্স’-এর আওতায় দেশের বেসরকারি চিকিৎসা ব্যবস্থা পরিচালিত হয়। অধ্যাদেশটি যখন করা হয়েছিল, তখন দেশে হাতেগোনা কয়েকটি বেসরকারি স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠান ছিল। বর্তমানে তার অবয়ব কয়েকগুণ বাড়লেও বেসরকারি খাতের চিকিৎসাসেবা নিশ্চিতে যুযোপযোগী আইন প্রণয়ন করা হয়নি। অধ্যাদেশ হওয়ার পর আইন প্রণয়নে পাঁচবার উদ্যোগ নেয়া হলেও তা ভেস্তে যায়।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের তথ্য অনুযায়ী, দেশে সরকারি হাসপাতালের সংখ্যা ৬৫৪টি। আর ৫ হাজার ৫৫টি বেসরকারি হাসপাতাল। তবে সারাদেশে এর চেয়ে কয়েক গুণ বেশি অনিবন্ধিত বেসরকারি হাসপাতাল রয়েছে বলে সূত্র জানিয়েছে। ১৯৮২ সালের ‘দ্য মেডিকেল প্র্যাকটিস অ্যান্ড প্রাইভেট ক্লিনিকস অ্যান্ড ল্যাবরেটরিজ (রেগুলেশন) অর্ডিন্যান্স’-এর ১৩ ধারায় উল্লেখ রয়েছে, একজন রেজিস্টার্ড চিকিৎসক কিংবা একটি বেসরকারি মেডিকেল কলেজ অধ্যাদেশের কোনো ধারা লঙ্ঘন করলে সর্বোচ্চ ৫ হাজার টাকা জরিমানা করা যাবে। অধ্যাদেশ অনুযায়ী তৈরি করা শিডিউলে একজন অধ্যাপক, সহযোগী অধ্যাপক বা সমমানের চিকিৎসকের ফি ৪০ টাকা নির্ধারণ করা আছে। এটা প্রথম দর্শনীর ফি। দ্বিতীয় দর্শনীর ফি ২০ টাকা। বাড়িতে গিয়ে রোগী দেখার ফি ৮০ টাকা। শুধু চিকিৎসকদের ফি-ই নয়, ছোট-বড় অপারেশন, অ্যানেসথেশিয়া, ইসিজি, এক্স-রেসহ সব কিছুর ফি নির্ধারিত আছে অধ্যাদেশটিতে। একটি মেজর অপারেশনের ফি নির্ধারণ আছে ২ হাজার টাকা। সেই সঙ্গে নির্ধারিত রয়েছে ইউরিন টেস্ট, প্রেগন্যান্সি টেস্টসহ ১০৫ ধরনের ল্যাবরেটরি টেস্টের ফিও।

এই শিডিউল সময়ে সময়ে সংশোধন করার দায়িত্ব দেয়া আছে সরকারের ওপর। কিন্তু বিগত ৩৮ বছরে শিডিউল সংশোধন হয়নি, পরিবর্তন হয়নি এ মূল্য তালিকার। আবার মূল্য তালিকার প্রত্যেকটি হাসপাতালের মানুষের কাছে দৃশ্যমান হবে এমন জায়গায় টাঙানোর কথা। কিন্তু দুই বছর আগে সেটিও টাঙানো হতো না। এক ধরনের বিশৃঙ্খল অবস্থার মধ্য দিয়ে যাচ্ছে বেসরকারি স্বাস্থ্যসেবা। অথচ দেশে স্বাস্থ্যসেবা গ্রহণকারী জনসংখ্যার প্রায় ৭০ শতাংশ বেসরকারি প্রতিষ্ঠান থেকে সেবা নেন।

জানা গেছে, এখন পর্যন্ত পাঁচবার বেসরকারি স্বাস্থ্যসেবা আইন তৈরির উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। কিন্তু কোনোটিই আলোর মুখ দেখেনি। প্রথমবার ১৯৯১ সালে আইনটি সময়োপযোগী করার জন্য খসড়া করা হয়েছিল। ১৯৯৮ সালে এসে আবার খসড়া করা হয়। নতুন করে ড. মোশাররফ হোসেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী থাকাকালে উদ্যোগ নেন ২০০৩ সালে। তত্ত্বাবধায়ক সরকারের পর ২০১১ সালে মহাজোট সরকারও উদ্যোগ নিয়েছিল। সর্বশেষ ২০১৬ সালে সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বেসরকারি স্বাস্থ্যসেবা আইন করার উদ্যোগ নেন। এই আইন আজও আলোর মুখ দেখেনি। এ অবস্থায় স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করার দাবিতে ২০১৮ সালে হাইকোর্টে একটি রিট করেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী অ্যাডভোকেট বশির আহমেদ। ২০১৮ সালের ২৪ জুলাই এ রিটের প্রাথমিক শুনানি নিয়ে প্রাইভেট হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারে বিভিন্ন পরীক্ষার মূল্য তালিকা উন্মুক্ত স্থানে ১৫ দিনের মধ্যে প্রদর্শনের, ১৯৮২ সালের অধ্যাদেশের ধারা ১৪ এবং ১৬ অনুযায়ী চিকিৎসা ব্যয় শিডিউল রিভাইজড ও নতুন করে চিকিৎসা ব্যয় শিডিউল বিধি প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন করতে নির্দেশ দেয়। এ ছাড়া হাসপাতাল এবং ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলো সেবামূলক প্রতিষ্ঠান হিসেবে ব্যবহার না করে বাণিজিক প্রতিষ্ঠান হিসেবে পরিচালিত হচ্ছে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ারও নির্দেশ দেয়। কিন্তু হাইকোর্টের সেই আদেশ আজও বাস্তবায়ন হয়নি।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে রিটকারী আইনজীবী বশির আহমেদ বলেন, প্রায় দেড় বছর আগে স্বাস্থ্য অধিদফতর জানিয়েছে, তারা একটি নতুন আইনের খসড়া তৈরি করেছে। এটা মন্ত্রিসভায় অনুমোদনের পর আদালতে দাখিল করবে। কিন্তু আজ পর্যন্ত তারা সেটা দাখিল করেনি। সবাই বড় বড় কথা বলে কিন্তু কাজ করে না। যার কারণে এই বেহালদশা।

ঢাকা শিশু হাসপাতালের শিশু কিডনি রোগ বিশেষজ্ঞ ডা. মোহাম্মদ হানিফ বলেন, ওই অধ্যাদেশের কিছু ধারা এখন একেবারেই অকার্যকর হয়ে পড়েছে। তাই অধ্যাদেশটিকে যুগোপযোগী করে পরিপূর্ণ আইনে পরিণত করা খুব জরুরি। তিনি বলেন, যে কোনো ধরনের আর্থিক বিষয় নির্ধারণ করতে হবে বর্তমান বাজারমূল্য যাচাই করে। তিনি বলেন, এ ধরনের আইন বা নীতিমালাগুলো ডিজিটাল মাধ্যমে সবার জন্য উন্মুক্ত রাখতে হবে। যাতে করে যে কেউ এই আইন বা নীতিমালা অনুযায়ী তার প্রাপ্য সেবা তিনি পাচ্ছেন কিনা, তা যাচাই করতে পারেন।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন (বিএমএ) মহাসচিব ডা. ইহতেশামুল হক চৌধুরী বলেন, স্বাস্থ্য খাতে জনগণের আস্থা ফিরিয়ে আনতে অন্য যে কোনো খাতের চেয়ে বেশি অগ্রাধিকার দিতে হবে। এক্ষেত্রে একটা কমিশন করতে হবে। যারা অর্থনীতিবিদ, আইনজীবী, সাংবাদিক ও চিকিৎসক সমাজের নেতাদের সঙ্গে আলোচনা করে দ্রুত সময়ে রিপোর্ট প্রদান করবে। তার আলোকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে। এছাড়া হাইকোর্টের সেই আদেশকে বাস্তবায়ন করাও জরুরি বলে মনে করেন তিনি